ডেস্ক রিপোর্ট

২ ডিসেম্বর ২০২৩, ৮:১৯ অপরাহ্ণ

মাগুরায় বিপ্লববার্ষিকী উপলক্ষে বাসদ এর সভা অনুষ্ঠিত

আপডেট টাইম : ডিসেম্বর ২, ২০২৩ ৮:১৯ অপরাহ্ণ

শেয়ার করুন

অধিকার ডেস্ক: বাসদ এর ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও ১০৬তম রুশ বিপ্লববার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ মাগুরা জেলা শাখার উদ্যোগে আজ ২ ডিসেম্বর ২০২৩ সকাল ১১টায় সৈয়দ আতর আলী পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ মাগুরা জেলা শাখার আহ্বায়ক প্রকৌশলী শম্পা বসুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য প্রদান করেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড শফিউর রহমান শফি, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী।

শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য কাজী নজরুল ইসলাম ফিরোজ, বাংলাদেশ জাসদের মাগুরা জেলা শাখার সভাপতি এটিএম মহব্বত আলী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট মাগুরা জেলা শাখার সংগঠক গোলাম পারভেজ। সভা পরিচালনা করেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ মাগুরা জেলা শাখার সদস্য সচিব ভবতোষ বিশ্বাস জয়।

আলোচনা সভায় বক্তাগণ বলেন, আমাদের দেশ স্বাধীন হয়েছে ৫২ বছরেরও অধিক সময় হতে চলেছে। আর এই ৫২ বছর ধরে বুর্জোয়া শাসকগোষ্ঠী মুক্তিযুদ্ধের চেতনার (সাম্য, মানবিক মর্যাদা, সামাজিক ন্যয়বিচার) বিপরীতে দেশ শাসন করে চলেছে। তার ফলশ্রুতিতে আওয়ামী সরকারের চরম ফ্যাসিবাদী দুঃশাসনে দেশ আজ গভীর সংকটে নিমজ্জিত। বর্তমান সরকার ২০১৪ সালে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভোটারবিহীন নির্বাচনে ১৫৩ জন জয়ী হয়ে ও ২০১৮ সালে নিশিভোটে ক্ষমতায় এসে একাধারে ১৫ বছর ধরে দেশ শাসন করে আবারো ক্ষমতায় আসার জন্য নানা অপকৌশল করছে। যেকোনো প্রকারে ক্ষমতায় থাকতে তারা একতরফা তফসিল দিয়েছে। বিরোধী দলীয়দের জেলে আটকে রেখে, হামলা-মামলা দিয়ে, নিজেরা নিজেরাই প্রার্থী আর ডামি প্রার্থী দিয়ে সাজানো নাটকের মতো নির্বাচন করে নিতে চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সরকারের একগুয়েমি দেশকে সংঘাত-সহিংসতার দিকে ঠেলে দিয়েছে। বুর্জোয়া ব্যবস্থা আজ আর একদিনের ভোট দিতে পারার গণতন্ত্রটুকুও রক্ষা করতে পারছে না।

আর এদিকে নিত্যপণ্যের দাম আকাশ ছোঁয়া। দেশের ৬৮ শতাংশ মানুষ খাদ্যদ্রব্য কিনতেই হিমসিম খাচ্ছে। দেশের সকল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান দুর্নীতি ও দলীয়করণে নিমজ্জিত। টাকা পাচার, ব্যাংক লুটপাট আজ দেশকে চরম অর্থনৈতিক সংকটে ফেলে দিয়েছে। রিজার্ভ ১৬ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে।

দুর্নীতি বন্ধ, দ্রব্যমূল্য কমানোসহ ভোট ও ভাতের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথের লড়াই জোরদার করে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা শোষণমুক্ত সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়া-ই এখন সময়ের দাবি।

আলোচনা সভা থেকে একতরফা তফসিল বাতিল ও সরকার পদত্যাগ করে নির্দলীয় তদারকি সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়া ও মাগুরায় কৃষিভিত্তিক শিল্প কারখানা নির্মান,বেকারত্ব দূর ও বন্ধ টেক্সটাইল মিল চালু করাসহ বিভিন্ন দাবি উত্থাপিত হয়।

শেয়ার করুন