ডেস্ক রিপোর্ট

১৯ মে ২০২৪, ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

ব্যাটারিচালিত যানবাহন চালকদের আন্দোলনে বাসদ ঢাকা মহানগরে সংহতি

আপডেট টাইম : মে ১৯, ২০২৪ ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

শেয়ার করুন

অধিকার ডেস্ক: ঢাকা মহানগরে ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা ও মিরপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যাটারিচালিত যানবাহন থেকে ব্যাটারি খুলে নেয়া ও হয়রানিতে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাসদ ঢাকা মহানগর শাখার ইনচার্জ কমরেড নিখিল দাস। একই সাথে মিরপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চলে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ন্যায়সংগত দাবির প্রতি সংহতিও জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে কমরেড নিখিল দাস বলেন, এ সিদ্ধান্তের উপকারভোগী কারা আর অপকারভোগী কারা বা কেন এই সিদ্ধান্ত? প্রথমত ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহন ঢাকা মহানগরের প্রধান সড়কে চলাচল করে না। এটা মূলত মহানগরে অলি গলিতে চলে কারণ সেখানে কোন গণপরিবহন নেই। এক জরিপে দেখা গেছে ঢাকা মহানগরের প্রায় ৫০ ভাগ মানুষ এই ধরনের যানবাহনে চলাচল করে। আর মাত্র ৬ ভাগ যাত্রী নিয়ে ঢাকা মহানগরের প্রায় ৮০ ভাগ রাস্তা দখল করে যানজট সৃষ্টি করে প্রাইভেট গাড়ি। ঢাকা মহানগরে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের দুর্ঘটনার তেমন কোন রেকর্ড নেই। তারপরেও যানজট কিংবা দুর্ঘটনার অজুহাতে ব্যাটারিচালিত যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করার কোন যৌক্তিকতা নেই। দ্বিতীয়ত এই বাহনের সাথে চালক, মালিক, মহাজন, গ্যারেজ মালিক, চার্জিং ব্যাবসায়ি, শ্রমিক মেস পরিচালনাকারি ও মটর/রিকশা পার্টস, ব্যাটারিসহ ৬০/৬৫ ধরনের ব্যবসা ধরলে এর সাথে যুক্ত সারাদেশে প্রায় ৬০ লাখ ও ঢাকা মহানগরেও এ সংখ্যা আনুমানিক ৫ লাখের উপরে। যাদের জীবন ও জীবিকা এই গণপরিহনের উপর নির্ভরশীল। এ গণপরিবহন বন্ধ হলে আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহকারি এ লাখ লাখ মানুষের ও তাদের পরিবারের দায়-দায়িত্ব কে নেবে? তৃতীয়ত এটি পরিবেশ বান্ধব, শব্দ ও বায়ু দূষণ করে না, নিরাপদ ও সাশ্রয়ী গণপরিবহন। ইতোমধ্যে সরকার থ্রী-হুইলার ও সমজাতীয় মোটরযান নীতিমালা-২০২১ খসড়া চূড়ান্ত করেছে ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহনের নিবন্ধন, রুট পারমিট ও লাইসেন্স দিতে। মহামান্য সুপ্রিম কোর্টও ইতোমধ্যে একটি রীটের বিপরীতে মহাসড়ক ছাড়া সর্বত্র চলাচলে আদেশ প্রদান করেছে। কিন্তু কি কারণে ঢাকা মহানগরে প্রধান রাস্তায় চলাচল না করা সত্ত্বেও কেন তাকে নিষিদ্ধ করা হচ্ছে।

বিবৃতিতে তিনি মিরপুরসহ ঢাকা মহানগরে বিভিন্ন এলাকায় রিকশা আটক, ব্যাটারি খুলে নেওয়া ও চালকদের হয়রানি বন্ধ করে থ্রী-হুইলার ও সমজাতীয় মোটরযান নীতিমালা-২০২১ চূড়ান্ত ও কার্যকর করে ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহনের দ্রুত নিবন্ধন, লাইসেন্স ও রুট পারমিট প্রদান করার দাবি জানিয়েছেন। একই সাথে ঢাকা মহানগরে ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহন চলাচলে বন্ধ ঘোষণা করার বিআরটিএ ও দুই সিটি কর্পোরেশন এর অযৌক্তিক ও গণবিরোধী সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার আহ্বান জানান।

শেয়ার করুন