ডেস্ক রিপোর্ট

৯ জুলাই ২০২৪, ১০:১৬ অপরাহ্ণ

কোটা পদ্ধতির যৌক্তিক সংস্কার করুন : ছাত্র ফ্রন্ট

আপডেট টাইম : জুলাই ৯, ২০২৪ ১০:১৬ অপরাহ্ণ

শেয়ার করুন

অধিকার ডেস্ক: সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ছাত্রনেতা মুক্তা বাড়ৈ এবং সাধারণ সম্পাদক রায়হান উদ্দিন আজ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে চাকুরিতে বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থার যৌক্তিক সংস্কার দাবি করেছেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, সমাজের অনগ্রসর ও পিছিয়ে থাকা অংশকে মুল ধারায় নিয়ে আসার জন্য কোটা বা আসন সংরক্ষণ সামাজিক দায়িত্বেরই অংশ। সে দিক বিবেচনায় বাংলাদেশের আদিবাসী প্রান্তিক জনগোষ্ঠী, নারী, প্রতিবন্ধি বা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিক্ষার্থীদের জন্য কোটার প্রয়োজনীয়তা অস্বীকার করা যায় না। কিন্তু তারও একটা টার্গেট সময় থাকা প্রয়োজন, এটা বছরের পর বছর ধরে চলতে পারেনা। দেশে তীব্র বেকারত্ব, সরকারি শূন্য পদে বছরের পর বছর নিয়োগ না দেয়া এবং নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি না করার ফলে শিক্ষা শেষে কাজ না পাওয়ায় ছাত্র সমাজের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করছে। এক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের তৃতীয় প্রজন্ম অর্থাৎ নাতি-পুতি পর্যন্ত কোটা সংরক্ষণ এই অসন্তোষকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের দেশের গর্বিত সন্তান, শ্রদ্ধার পাত্র। তাদেরকে সুবিধা প্রত্যাশী বলে বিতর্কিত করার যে কোন পদক্ষেপই নিন্দনীয়। শিক্ষা শেষে কাজের অধিকার, কোটার নামে অযৌক্তিক সংরক্ষণ এবং মুক্তিযুদ্ধের আবেগ তিনটি ভিন্ন ভিন্ন বিষয়। কিন্তু পুঁজিবাদী শোষণমূলক ব্যবস্থা সকল নাগরিকের কর্মসংস্হানসহ মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে পারেনা, তাই বেকার সমস্যা সমাধানের যথার্থ উদ্যোগ না নিয়ে এই তিন বিষয়কে মুখোমুখি দাড় করিয়ে শাসকশ্রেণি নিজেদের ব্যর্থতাকে আড়াল করার অপচেষ্টা দুঃখজনক। এখন এর সঙ্গে আদালতকেও যুক্ত করে পরিস্থিতি আরও জটিল করে তোলা হয়েছে।

নেতৃবৃন্দ, কোটা নিয়ে সরকার প্রধানসহ মন্ত্রীদের বিতর্কিত বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে সারাদেশের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও আবেগকে বিবেচনায় নিয়ে কোটা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসনের দাবি জানিয়েছেন ।

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে কোটা ব্যবস্থার যৌক্তিক সংস্কার, নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সকল শূন্য পদে নিয়োগ, চাকুরিতে নিয়োগে ঘুষ, দুর্নীতি, দলীয়করণ ও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করাসহ আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নেওয়ার আহবান জানান।

 

শেয়ার করুন